তর্কের যে নিয়ম প্রশ্নহীনভাবেই গ্রাহ্য তার বাইরের তর্ক

ড. সামিয়া খাতুনের পিএইচডি, ইতিহাসের বিলম্ব ও অস্ট্রেলিয়ার গহীন মরুতে পথ হারানো বিবিসি বাংলা

অস্ট্রেলিয়ার সবচেয়ে দুর্গম অঞ্চলের প্রায় পাঁচশো কিলোমিটার গভীর মরুভূমিতে বেশ কয়েক বছর আগে হঠাৎ খুঁজে পাওয়া গিয়েছিল একটি প্রাচীন গ্রন্থ, যাকে মুসলমানদের পবিত্র ধর্মগ্রন্থ কোরআন মনে করে সংরক্ষণ করা হচ্ছিল।

কিন্তু একজন অস্ট্রেলিয়ান-বাংলাদেশি গবেষক সেখানে গিয়ে দেখতে পেলেন এটি আসলে বাংলা ভাষায় লেখা শত বছরেরও আগের একটি পুঁথি।

গবেষক ড: সামিয়া খাতুন এই গবেষণার সূত্র ধরে বিশ শতকের শুরুতে অস্ট্রেলিয়ায় তৎকালীন বাংলা এবং ভারতবর্ষ থেকে মানুষের অভিবাসনের চমকপ্রদ এক ইতিহাসের সন্ধান পেয়েছেন, যা নিয়ে তার একটি বই শীঘ্রই প্রকাশিত হতে যাচ্ছে লন্ডন থেকে।

ড: সামিয়া খাতুন বিবিসি বাংলাকে বলছিলেন ইতিহাসের বই-এ যখন তিনি ওই কোরআনের কথা পড়েন তখন তিনি তা দেখতে পাড়ি জমিয়েছিলেন সেখানে।

“পাঁচশ কিলোমিটার পথ গিয়ে বইটি খুঁজে বের করার পর খুলে দেখি সেটি কোরআন নয়, বাংলা কবিতা,” বলেছেন ড: সামিয়া খাতুন।

– ‘অস্ট্রেলিয়ার গহীন মরুতে ১৮শতাব্দীর বাংলা পুঁথি’, বিবিসি বাংলা

ছবি ১. ব্রোকেন হিল গহীন মরু নয়

বিবিসি অভিহিত “অস্ট্রেলিয়ার সবচেয়ে দুর্গম অঞ্চলের প্রায় পাঁচশো কিলোমিটার গভীর মরুভূমিতে” অবস্থিত এজেন্ট স্ট্রিট, ব্রোকেন হিল। কিন্তু “সবচেয়ে দুর্গম অঞ্চলের প্রায় পাঁচশো কিলোমিটার গভীর মরুভূমিতে” বলতে আসলে কী বোঝায়? বিবিসি এই গভীর বাংলা কই থিকা শিখল! কেউ বুঝতে পারতেছেন সবচেয়ে দুর্গম অঞ্চলটা কই থিকা শুরু হইল? যেখান থেকে আরো পাঁচশ কিলোমিটার গভীরে যেতে হবে! আর যেইখানে বিমান যায় সেইখানে দুর্গম কেন, কীভাবে? নিচে ব্রোকেন হিল এয়ারপোর্টের ছবি দ্রষ্টব্য।

ছবি ২. ব্রোকেন হিল গহীন মরু নয়

“পাঁচশ কিলোমিটার পথ গিয়ে বইটি খুঁজে বের করার পর খুলে দেখি সেটি কোরআন নয়, বাংলা কবিতা,” বলেছেন ড: সামিয়া খাতুন।” -বিবিসি
ব্রোকেন হিল মসজিদ, তেমন দুর্গম নয় এই জায়গা। ৫০০ কিমি পার হইয়া সেখানে যাওয়ার কথা বলার কী আছে! অস্ট্রেলিয়া তো তার চাইতে বেশি কিমি বাংলাদেশ থেকে। নয়? হাঃ হাঃ, বিবিসি বাংলার কী হইছে? “অস্ট্রেলিয়ার গহীন মরু!” মইরা ভূত হইয়া যাওয়া উটেরাও হাসবে এই কথা শুনলে!

১.
নিউ সাউথ ওয়েলসের ব্রোকেন হিল মসজিদ বহুদিন থেকেই পরিচিত জায়গা। বিবিসি যেই রকম ফাউল বকতেছে তেমন দুর্গম ফুর্গম কিছু না এই জায়গা। ১৯৬০ সালেও তেমন ছিল না।

তো এই মসজিদে ১৯৬০ সালে একটা বাংলা পুঁথিকে মুসলমানদের পবিত্র ধর্মগ্রন্থ কোরান হিসাবে সংরক্ষণ করা হইছিল।

যারা বাংলা ভাষা জানেন না তারাই এই রকম ভাইবা নিছিলেন, বোঝা যায়। বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রী সামিয়া খাতুন তার ইতিহাসের পাঠ্যবই ঘাটতে গিয়া আবিষ্কার করেন পবিত্র কোরান নয়, এটি আসলে পুঁথি। তাও বাংলা পুঁথি।

সেই পুঁথি নিয়া প্রতিবেদন করছে বিবিসি। বিবিসি আধাখেচড়া ও অতিশায়িত প্রতিবেদন যে করে তা আবারও বোঝা গেল এই প্রতিবেদন দেইখা।

পুঁথি কবে ছাপা তা বললেও পুঁথির নাম বলে নাই বিবিসি? কারণ কী?

২.
২০১২ সালেও এই নিয়া ফিচার করছিল এসবিএস—The mystery of the Bengali book in country NSW. সেখানেও পুঁথির নাম বলেন নাই সামিয়া।


ইউটিউব ভিডিও (২০১২): Muslim poetry book found in country NSW. এই ভিডিওতেও পুঁথির নাম বলা হচ্ছে না। রহস্য ঘনীভূত হচ্ছে কি তাতে?

৩.
ড. খাতুনের পিএইচডি সাঙ্গ হওয়ার পরে, ২০১৩ সালে নাম জানা গেছে পুঁথির। পুঁথিটি হচ্ছে কাজী সফিউদ্দিন এর কাছাছুল আম্বিয়া

ধরেন তিনি এই বিষয়ে পিএইচডি যদি না করতেন, তাইলে কী হইত?

ড. সামিয়া খাতুন

২০১২ সালেই আমরা হয়ত এই বিষয়ে বিস্তারিত জানতাম।

আরেক প্রকাশিত প্রতিবেদনের (What would a rare Bengali manuscript be doing in a Broken Hill mosque?, priyoaustralia.com.au) তারিখে বিশ্বাস রাখলে মনে হয় ২০০৯ সালেই আমরা জানতে পারতাম কাছাছুল আম্বিয়ার একটা কপি ব্রোকেন হিল মসজিদে সংরক্ষিত আছে।

তাতে কি আমাদের আগ্রহে একটু ভাটা পড়তে পারত?

পিএইচডির বা প্রতিবেদনগুলির মিস্ট্রি একটু কইমা যাইত তাতে?

কিন্তু পিএইচডি কী করল: পুঁথির নামটারেও আড়াল কইরা রাখল।

কারণ, নাম না জানা পুঁথি থেকে নাম জানা পুঁথির রহস্য কম।

এটি ব্রোকেন হিল এয়ারপোর্টের ছবি।

৪.

নিচে বিবিসি বাংলা ২০১৭ প্রতিবেদনের লিংক, অন্যদের ২০০৯ ও ২০১২ সালের ফিচারের লিংক। এছাড়া ড. সামিয়ার ২০১৩ সালে প্রকাশিত পিএইচডি থিসিসের রিভিউর লিংক।

ফিচারগুলি থিকা জানা যাইতেছে সামিয়া ২০০৯ সালেই এই বিষয়ে বিস্তারিত বলতে পারতেন।

বলেন নাই কি তার গভীর ধৈর্য্য নাকি তার বিলম্বিত পিএইচডির স্বার্থে?

ড. খাতুনকে তবু ধন্যবাদ, এবার লন্ডন থেকে বই প্রকাশ কইরা আমাদের তিনি সব জানাইবেন।

তার বইয়ের সার্বিক সাফল্য কামনা করি। কামনা করি, বিবিসি বাংলারও ধৈর্য্য এবং শিক্ষা।

২১/১০/২০১৭

লিংক

ক.  অস্ট্রেলিয়ার গহীন মরুতে ১৮শতাব্দীর বাংলা পুঁথি, বিবিসি, ২০/১০/২০১৭। লিংক: http://bbc.in/2zEHqVb
খ.  The mystery of the Bengali book in country NSW, sbs.com.au, ২৬/১২/২০১২। লিংক: http://bit.ly/2xU8fT7
গ.  What would a rare Bengali manuscript be doing in a Broken Hill mosque?, priyoaustralia.com.au, ২২/৮/২০০৯। লিংক: http://bit.ly/2xUAdhw
ঘ.  The South Asian Diaspora in Australia, ১৪/১১/২০১৩। লিংক: http://bit.ly/2zEdetm

Leave a Reply