তর্কের যে নিয়ম প্রশ্নহীনভাবেই গ্রাহ্য তার বাইরের তর্ক

দরিদ্র বাস শ্রমিকের টেকা ফিরাইয়া দেওন সংক্রান্ত যায়যায়দিনীয় গুড নিউজের নিন্দা জানাই! (২০০৭)

দৈনিক যায়যায়দিন পত্রিকার কল্যকার (১১/৫/৭) সংখ্যায় একটি নিউজ ছাপা হইছে। নিচের লিংকে সেইটা পড়ন যাইব [লিংক অকার্যকর–ব্রারা ৩০/৬/১৩]।

লিংক-অনাগ্রহীদের সুবিধায় নিম্নে খবরটাও পেস্টিত হইল।

লিংক >> http://www.jaijaidin.com/details.php?nid=9400

গুড নিউজ
কাপাসিয়া (গাজীপুর) সংবাদদাতা
শাবাশ মিলন খান

নীতি-নৈতিকতার লাগামহীন অবক্ষয়ের এ যুগে দুর্ঘটনা কবলিত একটি ট্রাক থেকে কুড়িয়ে পাওয়া এক লাখ টাকা গোপনে থানায় জমা দিয়ে অনন্য দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছেন কাপাসিয়ার উত্তর খামের গ্রামের দরিদ্র বাস শ্রমিক মিলন খান (২৫)।

জানা যায়, গত সোমবার সন্ধ্যায় কাপাসিয়া-টোক সড়কের লতা-পাতা বাজারের কাছে একটি যাত্রীবাহী বাস ও মালবাহী ট্রাকের মুখোমুখি সংঘর্ষে উভয় গাড়ি দুমড়ে-মুচড়ে রাস্তার পাশে পড়ে যায়। সন্ধ্যায় বাস শ্রমিক মিলন খান ট্রাকের ভেতরে ৫০০ টাকার দুটি বান্ডলে মোট এক লাখ টাকা পেয়ে অতি গোপনে কাপাসিয়া থানায় জমা দেন। পরে টাকার প্রকৃত মালিক উপযুক্ত প্রমাণ দিয়ে থানার ওসি মোখলেছুর রহমানের কাছ থেকে বুঝে নেন। তিনি মিলন খানকে সততার পুরস্কার স্বরূপ তিন হাজার টাকা দেন বলে জানা গেছে।”

টাকা
টাকা

এগুলিরে পত্রিকার মা-বাপরা হিউম্যান স্টোরি বা পজেটিভ নিউজ কইয়া থাকেন। এখন পাঠকের গুষ্টি, আসেন নিউজটা নিয়া একটু শিক্ষা লাভ করি। মানে এই নিউজের মরালটা ধরতে চেষ্টা করি।

ধরেন এই লাখ খানেক টাকা রাস্তার পাশে কুড়াইয়া পাইছেন যায়যায়দিন পত্রিকার সম্পাদক শফিক রেহমান [এখন সম্পাদক আর নন–ব্রারা ৩০/৬/১৩]।

এবং উনি যদিও পত্রিকার ফিচার পাতায় লেখালেখি করা প্রভূতদের অনেক টেকা পরিশোধ করেন নাই এবং এক বছর হইয়া যায় যায় তবু তা পরিশোধের নামগন্ধ নাই তবু রাস্তার টেকা তিনি পুলিশের হাতে পৌঁছাইয়া দিয়া আসছেন। গোপনে। এখন আপনেরা একটু বলেন, সেই শফিক সাহেবের টেকা ফিরাইয়া দেওনের কাহিনী নিয়া নিউজ হইব কিনা? না হইলে কেন হইব না!

ফকিন্নির বাচ্চাগো টেকা ফিরাইয়া দেওনের কাহিনী অনন্য হয় কারণ পত্রিকা সাংবাদিক তথা সম্পাদকরা মনে করে দরিদ্র বাস শ্রমিকরা টেকা পাইলেই মাইরা দিব! এই সংবাদ-এর মইধ্যে দরিদ্র বাস শ্রমিকদের জীবনাচরণের ব্যাপারে মীন একটা দৃষ্টিভঙ্গি একাকার হইয়া আছে। এক্ষণে এই নিউজের নিন্দা জানাই। এবং যায়যায়দিন সাহেবের তরফে ‘আর্ট এন্ড কালচার’সহ অন্য পাতায় যারা লেখা জমা দিয়া পয়সার পাওনাদার হইছেন তাগো প্রাপ্য গোপনে পরিশোধিত হইছে এমন গুড নিউজটি শোনার অপেক্ষায় রইলাম।

১২/৫/৭

Flag Counter

Leave a Reply