অ্যাকটিভিস্টদের ধর্ম বাসনা

কেন অ্যাকটিভিজম সমস্যার, তা বলি।

ধরেন কোনো কিছু আপনি আদায় করতে চান। কীভাবে করবেন তা নিয়াই সমস্যা। আদায়ের এক রাস্তা অ্যাকটিভিজম। অ্যাকটিভিজমে সমস্যা যখন দেখলেন তখন তখনই যে সমাধান বা অন্য রাস্তা আপনি খুঁইজা পাইবেন, তা সব সময় হয় না।

আবার দেখেন যারা সরকারের আন্ডারে থাকতে আগ্রহী তাদের কী ব্যাপার? যারা শাসিত হইতে চায় তাদের জন্যে স্বৈরাচারী সরকার একটা ওয়ে। আবার গণতন্ত্রও আছে। আপনি এইখানে বিকল্প পাইতেছেন।

অ্যাকটিভিজমের বিকল্প কী আমি ভাবি নাই। রাজনীতি তা মনে হয় না। কারণ অ্যাকটিভিস্টদেরও রাজনীতি আছে।

কিন্তু এইটা যে দোষের তা যেহেতু দেখতেছি আমি তো বলবোই।

২.
অ্যাকটিভিজম মানবসভ্যতায় ব্যক্তির রুচিকে বা কতিপয়ের রুচি ও শুভবোধকে সমষ্টির জন্যে অবশ্য পালনীয় কইরা তুলতে চায়।

প্রথমত সালিশ করে, এখন তার বেশিরভাগটাই থ্রু ফেসবুক। ও ফাইনালি আইনের অস্ত্র দিয়া টাইট দেয়। এইটারে আপনি পজেটিভ ফ্যাসিজমও বলতে পারেন। অবশ্য ফ্যাসিবাদ পজেটিভের বাসনা ছাড়া হয়ও না।

নিষেধাজ্ঞার মাধ্যমে সোসাইটি নিয়ন্ত্রণ করাটা ধর্মের কাজ ছিল, সে কাজ এখন করতে আগ্রহী অ্যাকটিভিজম ও পলিটিক্যাল কারেক্টনেস।

কিন্তু সমস্যা হইল, উচ্চম্মন্যতার জায়গা থিকা সোসাইটি ইঞ্জিনিয়ারিং করলে তাতে বর্ণবাদ প্রতিষ্ঠিতই থাকে। নতুন কালচারাল এলিট হিসাবে অ্যাকটিভিস্টদের যে উত্থান এইটা তো এমনে এমনে হয় নাই।

৩.
রিসেন্ট দৃষ্টান্ত দেখেন। আপাতদৃষ্টে মনে হবে ধর্ষণের সর্বোচ্চ শাস্তি মৃত্যুদণ্ড প্রতিষ্ঠা করলো পুলিশ প্রহরাধীন লড়াকু অ্যাকটিভিস্টরা। কিন্তু এইটা আসলে কে করলো? কে সিগনেচার করলো? কার এতে লাভ হইল?

এই মৃত্যুদণ্ড নামক গন্দম ফলরে আপনি ক্রসফায়ারের বৈধতা দানের কৌশল হিসাবে কী কারণে দেখতে চাইবেন না? বিরোধী শক্তিগুলারে মিথ্যা মামলায় মাইরা ফেলানোর ফন্দি হিসাবে দেখবেন না কেন? সরকারের সহযোগী হিসাবে এই লড়াইয়ে কাজ করতেছেন কারা? এই নিষ্পাপ নিষ্পাপ দেখতে সকল ফেরেশতা অ্যাকটিভিস্টরা!

এই অ্যাকটিভিজম ধর্ষণকারীদেরকে অপরাধী বিবেচনা কইরা শাস্তি দানের মাধ্যমে শেষ হয় না, বরং ঘৃণা নামক সমাজ বিভাজনকারী হাতিয়ার তারা শানাইতে থাকে।

তাইলে ট্রাইবাল সোসাইটি যেই জায়গায় ছিল সেই সালিশির বাইরে আপনি কতটুকু আগাইলেন, এই অ্যাকটিভিস্ট ভারাক্রান্ত বিশ্বে?

সরকারগুলির সকল দুই নাম্বারী ধামাচাপা দেওয়া আর নতুন নতুন দুই নাম্বারীর সুন্দর মুখের ঢাকনা হিসাবে তৃতীয় বিশ্বে অ্যাকটিভিস্টরা সর্বশক্তিতে লইড়া যাইতেছেন বটেই।

হাঃ হাঃ।

১৪/১০/২০২০


Leave a Reply