নারীবাদীরা যখন সিগারেট খায়

পুরুষ কেন সিগারেট খায় সেই প্রশ্নের সমাধান কি হইছে?

নারীরা যখন সিগারেট খাইতে অক্ষম বা পারে না বা সামাজিক ভাবে প্রতিহত হয় তখন পুরুষের সিগারেট খাওয়াকে স্রেফ সিগারেট খাওয়া হিসাবে দেখন যায় না।

এই দেশে নারীর (ও অল্প বয়েসীদের) পরাধীনতার স্মারক এই সিগারেট।

সে পরাধীনতা নারীর বা নারীবাদীদের (বা অল্পবয়েসীদের) সিগারেট খাওয়ার মধ্য দিয়া অবমুক্ত হয় না।

আমার দিক থিকা নারী বা পুরুষ যেই সিগারেট খাক তাদের এই খাওয়ারে অন্য ভাবে দেখার উপায় নাই। তারা এমন একটা স্বাধীনতার চর্চা করেন যা অন্যের পরাধীনতার আইকন হইয়া আছে।

পুরুষ প্রজাতিটি নারীর পরাধীনতার প্রতি অসম্মান দেখানোর জন্যেই সিগারেট খায় এমন বলতে আপনার দ্বিধা হয় কি?

হা হা, তাইলে বইলেন না।

আপনি বলতে পারেন যে তারা নারীর এই পরাধীনতার ব্যাপারে উদাসীন আছে বটে।

আপনি নারীবাদী হইয়া সিগারেট টানলে পরে নারীর প্রতি সিগারেট জনিত যে অসম্মান তার তিরোভাব ঘটে না। বরং তা আরো বাড়ে। সুবিধাবাদীর অংশগ্রহণ হিসাবে বাড়ে।

যে খাদ্য নিয়া সমাজে নারী-পুরুষের অধিকার ভাগ হইয়া আছে তারে স্রেফ খাদ্য হিসাবে দেখা যায় না।

সিগারেট নামক পুরুষতন্ত্র চর্চার এই ভার্চুয়াল শিশ্নে আপনার অধিকার প্রতিপন্ন করার মাধ্যমে আপনার পুরুষতান্ত্রিক চর্চাই কামিয়াব হয়, হে নারীবাদীগণ।

২৪/১২/২০১৫


Leave a Reply