প্রতিবাদের চাইতে প্রতিবাদী সাহিত্য দেখা গেছে লঘু মাত্রার হয়। যেহেতু তা সুধী সমাজের প্রতি নিবেদিত।

আর সাহিত্যিকরাও শুরু থিকা শেষ ভদ্রসমাজেরই আইটেম। ভদ্রসমাজ ভদ্রসমাজরে প্রতিবাদের খবর দিতেছে আর কি!

ফলে খানিক কাঁচা লঙ্কার রুদ্ররস ফিল করে সুধী ভাই ও বোনেরা। সম্ভাব্য প্রতিবাদীরাও পইড়া গা গরম করে।

এবং লঘু প্রতিবাদী সাহিত্যরে পরবর্তী কালে আসলে যারা প্রতিবাদী তারা অনুসরণও করে।

ফলে প্রতিবাদ আর প্রতিবাদ থাকে না। তা সাহিত্য হইয়া দাঁড়ায়। এবং মাঠে প্রতিবাদী সাহিত্যের মাইকিং চলতে থাকে। এইভাবে জগতে প্রতিবাদী সাহিত্য প্রতিবাদ আন্দোলনের গোয়া মারিয়া থাকে।

শুভ সকাল, দেবী মহাশ্বেতা।

৩১/৭/২০১৬

আরো পড়ুন: আমার জিনসের শার্ট নাই